Kajal Shaahnewaz

kasaA celebrated poet and short story writer from the 1980s Bangladesh, Kajal Shaahnewaz (b. 1961) has authored seven volumes of poetry and two volumes of short stories so far. He served as the editor of poetry magazines ‘Bikalpa Kobita’ (The First Poetry, 1989) and ‘Free Little Magazine’ (1995-1998). Alongside his own literary contributions, Kajal has been phenomenal in promoting innovative, new poetry by other poets as well. He has published a number of chapbooks by contemporary Bangladeshi poets in 1998-99 , 2007 and 2011 from his publication– ‘Free Ekush Shatak’.

Poetry volumes by Kajal Shaahnewaz: 

ChhaT Kagojer MolaT (Scrap Paper Jacket, 1984)
Jalamagna Paathshala (Waterlogged School, 1989)
Rohoshyo Kholaar Wrench(Demystification Wrench, 1992)
Amar Swasmul (My Pneumatophore, 2007)
KaThkoylay Aaka Tomake Amar (Drawing You in Cinder, 2009)
Talgach Hatir Baccha (Palmyra Tree and Baby Elephant, 2011)
EkTi Purush Pepe Gacher Prostaab (A Male Papaya Tree’s Offer, 2015)

Short Story collections: 

Kachimgala (Kachimgala, 1993)
Gatakal Laal (Yesterday Red, 2007)


One day Pineapple

There was no one but pineapples in the field
I slid inside
and quietly became one of them
with the desire to see more with many more eyes.

Many a grief myriad possibilities
I see the mid morning sun boiling on one side
wind blowing with pollen
Sal forest on one side. A noise on the other, a whistling gasp, who knows of what.
When free anguish became creative
it was surely a fusion manifold
that formed such a colossal alienation
My polyvision could only show me a singularity.

Even with many eyes, I really only have one, I reckoned
With many sensations, the soul is solitary.

I saw, top and bottom don’t match up.
Far is incomparable with near.
Night and day are distinct.
If you probe like a pineapple with many an eye
you can trace parallel thoughts.
you can groove many perceptions. Many things can be seen.

[From ‘Rohossho kholar wrench'(Demystification Wrench, 1992)]

The original cover of ‘Bikalpa Kabita’ (The First Poetry) magazine from 1989; edited jointly by Kajal Shaahnewaz and Rifat Choudhury

An Alternative Poem

1983, 15th April, ১লা বৈশাখ

I discover a laid off factory.
Machines are all rusted, sad switches sunk beneath the ultimate spider web. Central gear laid to rest in algae. Someone curved the metallic levers into the mouth of Satan.

16th April

Autumn girl, are you there? I stroke a match quivering by the main entrance. I touch the dry Mobil, wonder if machines cry too! I would sit beside. Lean from inside my mind. I can sag as well.

25th April

With a screw-driver in hand, wrench and ammeter– I am the rookie engineer. At 10 in the morning, engrossed at work, I see a river floating up in the long rails; breeze swiveling from the newly installed fan, I see the rays and shades swapping each other while I setup a light bulb. A pot of plastic paint come in hand, a deep sense of connection grows; deeper I work, deeper is the fragrance; I want to try my heart out. After cleaning the lenses – I see the scent is heavy, pale. Afraid and allured. Tiny scale, feeble flame. Like the eyelids slowly shake.

26th April

I cage myself in a recess and ponder over yesterday. The filament has glowed all day long, the fan blades spun, a green rail is before my eyes – glittering in light, a bright procession.

10th May

I return drenched in rain. A tidy yard, clean apron. I feel diligent and able. I chat with my success. ‘You know, I could not sleep last night in excitement.’ She says ‘me neither’. Can you believe the words of a machine?

15th May

Work is in progress. Some parts are already showing signs of useful success. Some are still impenetrable; at times, enraged. I loosen up some screws, put grease here and there; slowly ease the wings towards future. Most of the oil lines are fixed. I check a little, kiss, as if my sweetheart. But, I do get the kiss back. It feels like the river bank, a tender banyan plant.

26th May

May be this project will be the first success of my early life. Sweat-soaked, I don’t even have time to feel sorry. Everything is shivering in adrenaline.

2nd June

It’s actually a huge task. Innumerable complex pipes of desire, cylinders of joy, pistons of love, emotion wiring, safe valves of protocol – long arms of the shafts, agitating springs, embracing belts, eyes of the meter. Some spiral back like memory, some drown in childhood. The small steps of the conveyor belt. The clean aluminum. A slightest touch can make me feel fused with my entire being.

29th June

Everything suddenly went quiet. Something has shifted somewhere. An invisible force clutches my ribs. Everything soft is crumbling down. The machine itself is not helping. I want to sit numb facing the darkness. Should I blindfold myself? Should I just keep thinking about the flower that had bloomed in her garden for me?

jp

A poster of ‘Jalamagna PathShala’ , December 1989

August

She’s getting angry with me. Why did I make my hands dirty with grease! Why did I grab the wrench? Did I have to bet my youth on fixing these old machines, when nothing was certain! I am not feeling good either. Old fatigues are returning. The wrench drops from my hand; electrons throw me off when I try to fix the power line. I don’t go there for a few days. Then suddenly I go there again. During noon, eve or morning. Hungry, disoriented, ugly, guilty. She gave me a flower. I feel cheated, deceived.

October

No. My limbs and nails don’t like the intangible. I want to lay my hands on the switch gear, I want to see the crank shaft spin, I want to use my ammeter. I want marriage between this pervasive mother-gear and electricity. I want the boy from saw mill to unite with the ice cream factory girl. But it’s all dismay. Everything is crumbling. I want to dismantle myself and throw away. I want to tear the limbs from my body, fingers from the limbs, nails from the fingers – and throw them all away in the drainage, in the blind lane, to the police.

December

If I go to you in shivering cold – it’s warmth! You are not disjoint parts any more, you are the whole you. As if you have skin, ardent in longing for me. As if you have vision, tailing me like a detective, just to see me. I feel you are watching me every moment, I feel your presence.

1984

But what will I do with you? Do I return you to the previous owner? I have failed to contain your entirety, to get it rolling. Now I don’t have the courage to hold on. I lay lifeless like a paper-weight on the ownership pages. How will I face up, I don’t have the right. And they are so adamant to take you back. They will use you as a storage, to bargain for their mortgage money. And you say you were beginning to recover in my hand. But I can’t take it anymore, because you are no longer responsive, and going back is what you want as well. You don’t want to be new, you don’t want productivity. You want to remain the rusted locked up unhappy woman. Never breaking anything – not even a snake’s nest, not even a crown of thorn.

1985

So I come apart. I want to melt, rot, tear, break, lose all shapes. I feel like selling myself to the devil.

With the dark river one night, to Satan’s supper. Cutting across the scattered bones of shipwrecks and even the moon, I go there to stand in alkaline soil. I stand rooted before the dark flame until the eerie stars appear overhead. Flesh from my feet dissolves, leaving only the bone frames. The bubbles of spine-melted men, black female smokes through the chimney cracks, metal cancer, neural mechanization. Dark love, dark longevity. I stand forever to think when I’ll sit. I sit forever to wonder when I’ll stand again.

Shallow thoughts, limited emotion, mute expression.
I was going to remain the lone fish in this tiny bowl all my life.
Hence, I left you.

[From ‘Jolomogno Pathshala’ (Waterlogged School, 1989)]


একদিন আনারস

নির্জন জায়গা দেখে আমি একদিন আনারস ক্ষেতে ঢুকে
চুপ করে একটা আনারস হয়ে গেলাম
অনেকগুলি চোখ দিয়ে এক সাথে অনেক কিছু দেখবো বলে।

অনেকগুলি বেদনাকে আমি দেখতে পাচ্ছি অনেকগুলি সম্ভাবনা
দেখছি এগারোটার সূর্য একদিকে টগবগ করে ফুটছে
দেখছি একদিকে বাতাস বইছে ফুলের রেণু নিয়ে
একদিকে শালের অরণ্য। এক দিকে শব্দ। শো শো। কিসের যেন।
সাবলীল বেদনা যখন সৃষ্টিশীল হয়েছিল
নিশ্চয়ই অনেক কিছু মিলে এমন একটা
মহান একাকীতার জন্ম হয়েছিল
বহুদিকে তাকাতে তাকাতে আমি কেবল একের কথাই ভাবলাম।

মনে হয় আমার অনেকগুলি চোখ হলেও একটাই মাত্র চোখ
অনেকগুলি সংবেদন হলেও একটাই মাত্র অনুভব।

দেখি উপরের সাথে নিচের কোন মিল নেই।
কাছের সাথে দূরের কোনো তূলনা হয় না।
দিনের থেকে রাত পুরাটাই আলাদা।
অনেকগুলি চোখ দিয়ে আনারসের মত দেখলে
অনেক রকম ভাবনাকে রূপ নিতে দেখা যায়।
অনেক রকম দেখা যায়। অনেক কিছু দেখা যায়

 

একটি বিকল্প কবিতা

ঊনিশ শো তিরাশি, ১৫ই এপ্রিল, ১লা বৈশাখ

আমি একটি লেঅফ ঘোষিত কারখানার সন্ধান পাই।

মেশিন পত্র জংধরা, বিষন্ন স্যুইচের সারি মাকড়শার অন্তিম আঁশে ডুবে রয়েছে।

শ্যাওলা ছবির কাছে অদ্ভুতভাবে খুলে পড়ে আছে প্রধান গীয়ার। ধাতব লিভারগুলি বাঁকা করে শয়তানের মুখে গুঁজে দেওয়া।

১৬ই এপ্রিল

ভাদুরে কন্যা তুমি কি আছো? বলে কম্পিত হাতে প্রধান ফটকের সামনে দাঁড়িয়ে দেশলাই ঘষি। শুকিয়ে যাওয়া মবিলের কান্না ছুঁয়ে দেখি, যন্ত্রও মানুষের মতো কাঁদে কি না! ইচ্ছে হয় পাশে বসি। হেলান দিই মনের ভিতর থেকে। আমারও ক্লান্তি আছে।

২৫শে এপ্রিল

হাতে স্ক্রু ড্রাইভার, রেঞ্চ, বিদ্যুতমাপার মিটার – আমি তরুণ ইঞ্জিনিয়ার। সকাল দশটায়। কাজ করতে করতে লম্বা একটা রেইলের মধ্যে নদী ভেসে ওঠে; সদ্য লাগানো ফ্যান থেকে দূরন্ত হাওয়া, আলোর বাল্ব লাগাতে লাগাতে রোদ-ছায়ার আগমন দেখি। এক কৌটা প্লাস্টিক রঙ হাতে ওঠে, একটি প্রবল একাত্মতা তৈরী হতে থাকে; যতোবার ভিতরের দিকে কাজ করি, ততো গভীরতর ঘ্রাণ পাই; ইচ্ছা হয় আপ্রাণ চেষ্টা করি। চশমার কাঁচ মুছে দেখি – সুগন্ধ ভারী, ম্লান। ভীরু আর সংরক্ত। ছোট্ট মাত্রা, ক্ষীণ স্ফুরণ। যেন চোখের পাতা সামান্য একটু দোলানো।

২৬শে এপ্রিল

নিজেকে অবসরে বন্দী করে গতকালের কথা ভাবি। সারাদিন বাল্ব জ্বলেছে, ফ্যান ঘুরেছে, একটা মোচা রঙের রেল চোখের সামনে – আলোতে ঝিলমিল, উজ্জ্বল মিছিল।

১০ই মে

বৃষ্টির ভিতর ভিজতে ভিজতে ভিতর বাড়ি। অনেকটা গোছানো আঙ্গিনা, ঝকঝকে এপ্রন। নিজেকে মনে হচ্ছে কর্মঠ ও পারঙ্গম। মনে মনে সাফল্যের সাথে কথা বলি। ‘জানো কাল উত্তেজনায় রাতে ঘুমাতে পারিনি।’ ও বলে ‘আমিও।’ মেশিনের কথা কি বিশ্বাস করা যায়?

১৫ই মে

কাজটা আগাচ্ছে। কোনো অংশ বেশ চলনসই সফলতা দেখাচ্ছে। কোনো অংশ এখনো অগম্য। মাঝে মাঝে ফুঁসে ওঠে। দু’একটা স্ক্রু ঢিলে করে দিলাম, কোথাও গ্রিজে মেজে দিলাম। চলচ্চিত্রের দেখতে দেখতে ভবিষ্যতের দিকে হেলিয়ে দিলাম কল্পনার ডানা। অয়েল লাইনের অনেকটা ঠিক হলো। একটু চেক করি। চুমু খেলাম, যেন প্রিয় নারী। অবশ্য ফিরতি চুমু পেলাম। মনে হলো নদীর পাড়। একটা শিশু বট। যৌবনের চুমুর কান্নাইতো মনে হয়।

২৬শে মে

হয়তো এই প্রকল্পটিই হবে আমার জীবনের সূচনা পর্বের প্রথম সফলতা। ঘর্মাক্ত হয়ে ফিরে আসতে আসতে দেখি, দু:খিত হবার সময়গুলো পর্যন্ত নেই। সব উত্তেজনায় থরথর করছে।

২রা জুন

আসলে অতি বিশাল এর কর্মপ্রক্রিয়া। অজস্র জটিল বাসনার পাইপ, আনন্দের সিলিন্ডার, মমতার পিস্টন, আবেগের বিদ্যুৎতার, নিয়মের নিরাপদ ভালব – বড়ো বড়ো শাফটের হাত, স্প্রীং এর উত্তেজনা, বেল্টের আলিঙ্গন, মিটারের আঁখি। কোনোটা স্মৃতির মতো প্যাঁচানো, কোনো শৈশবের মধ্যে ডুবে যাওয়া। কনভেয়ার বেল্টের গুঁটিসুটি হেঁটে যাওয়া। এলুমিনিয়ামের শুভ্রতা। পেতলের একটু হলুদ। একটু ছুঁতেই মনে হয় আত্মার সাথে মিশে গেছি।

২৯শে জুন

সব কিছু হঠাৎ স্তব্ধ হয়ে গেল। কিছু একটা সরে গেছে কোথাও। পাঁজরার হাড়ে অদৃশ্য কিছু একটা এসে খিমচে ধরলো। ঝুরঝুর করে নরোম জিনিসগুলো ভেঙ্গে পড়ছে। মেশিন নিজেই কোনো সহায়তা করছে না। অন্ধকারের দিকে মুখ করে বসে থাকতে ইচ্ছে করছে। চোখে কাপড় বাঁধবো? আমার জন্য তার বাগানে যে একটি ফুল ফুঁটেছিল, তাই ভাববো?

আগস্ট

সরাসরি আমার উপর ক্ষেপে উঠছে। কেন আমি হাতে তেলকালি মাখাতে গেলাম! কেন আমার হাতে রেঞ্চ উঠলো? কি দরকার ছিলো পুরনো মেশিনপত্তর সারাবার জন্য যৌবন বাজি ধরার, যখন কিছুই নিশ্চিৎ নয়। আমারও ভালো লাগছে না, শরীরে পূরনো ক্লান্তি এসে নাক গলাচ্ছে। হাত থেকে রেঞ্চ পড়ে যায়, পাওয়ার লাইন ঠিক করতে গিয়ে বৈদ্যুতিক ধাক্কা পাই। দু’চার দিন যাই না। আবার হঠাৎ করেই যাই। দুপুরে বা বিকেলে বা রাতে বা ভোরে। ক্ষুধার্ত, হতচ্ছাড়া, কদাকার, অপরাধী। আমাকে সে একটি ফুল দিয়েছিল। প্রতারক উপহার, প্রতারক দাতা; সবই প্রতারণা।

অক্টোবর

না আ। আমার হাত পা নখ বিমূর্ত পছন্দ করে না। আমি চাই সুইচগীয়ারে হাত রাখতে, ক্র্যাংশাফটের ঘূর্ণন দেখতে, অ্যামিটার দিয়ে বিদ্যুৎ মাপতে। আমি চাই বিশাল মাতৃগীয়ার+বিদ্যুতের বিবাহ। করাত কলের ছেলে, আইসক্রীম ফ্যাক্টরীর মেয়ে। কিন্তু শুধুই শোক। সব ভেঙ্গে পড়ছে। মনে হয় নিজেকে খুলে ফেলে দিই নালায়-ডোবায়। শরীর থেকে পা হাত খুলে, হাত-পা থেকে আঙুল খুলে, আঙুল থেকে নখ খুলে ফেলে দেই নর্দমায়, কানাগলিতে, পুলিশে।

নভেম্বর

যদি বিরহই, তবে কেন প্রতিদিন চেষ্টা করে যাচ্ছি? সামনে গেলেই ওর সমস্ত বিবরণ অস্তিত্বের মাংশের ভিতর আনন্দের তীর ছোঁড়ে।

ডিসেম্বর

হাড় কাঁপানো শীতের মধ্যে তোমার কাছে গেলে – উষ্ণতা! তুমি আলাদা ভাবে আর যন্ত্রাংশ নও, সবটুকু মিলিয়ে তুমি। ধাতুর কাঠিন্যে ‘তুমি’ সঙ্গ; তোমার যেন ত্বক রয়েছে, আমার জন্য অনুভূতিতে উত্তাপময়। তোমার যেন চোখ রয়েছে, গোয়েন্দার মতো বেরিয়ে পড়ে আমার পিছুপিছু, শুধুই আমাকে দেখবে বলে। টের পাই সর্বক্ষণ তুমি দেখছো আমাকে, আমার সাথেই থাকছো।

১৯৮৪

কিন্তু তোমাকে নিয়ে কি করবো? পূরনো মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেবো? তোমার সম্পূর্ণতাকে যে আমি আয়ত্বে আনতে পারলাম না। চালু করতে পারলাম না যে। এখন ধরে রাখার সাহস নেই। পেপার ওয়েট হয়ে পড়ে থাকি, মালিকানা পত্র চাপা দিয়ে। কিভাবে সামনে দাঁড়াবো, আমার তো বাস্তব অধিকার নেই। অনধিকারী আমি। ওরা তো তোমাকে ফিরিয়ে নিতে পাগল। ওরা তোমাকে গুদামঘর হিসাবে ব্যবহার করবে। লোক দেখিয়ে লোনের টাকা ধরবে। আর তুমি কিনা বললে, তুমি নাকি আমার হাতে ঠিক হয়ে যাচ্ছিলে, চালু হয়ে যাচ্ছিলে। কিন্তু আমি যে পারছি না, কেন না তুমি আমার হাতে সাড়া দিচ্ছ না আর, আর তুমি ফিরেই যেতে চাও, তুমি নতুন হতে চাও না, উৎপাদনশীলতা চাও না। ঘাস জড়িয়ে জংধরে তালাবদ্ধ হয়ে অসুখী স্ত্রীলোক হয়েই থাকতে চাও। কিছুই ভাঙতে চাও না – সাপের বাসা হলেও, কাঁটার মুকুট হলেও।

১৯৮৫

তাই সরে আসি। আমার গলে যেতে ইচ্ছে করে, পচে যেতে। ছিঁড়ে, ভেঙে, চেপ্টে যেতে। শয়তানের কাছে বিক্রি হয়ে যেতে।

একদিন রাতে হাঁটতে হাঁটতে কালো নদীর পাড়ে যাই। শয়তানের শনিভোজ। জাহাজের হাড়গোড় মাড়িয়ে, চাঁদ ফাঁকি দিয়ে উপসি’ত হই অন্ধকারের মধ্যে ক্ষার-কাদায় দাঁড়িয়ে থাকতে। সামনে কালো আগুন নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকি যতক্ষণ না আকাশে অশুভ নির্বান্ধব তারা ওঠে। ততক্ষণে পায়ের মাংশ ক্ষারে ধুয়ে যায়। হাড়ের দুটো কাঠির উপর দাঁড়িয়ে থাকি। গাদের স্রোত বয়ে যায়… মেরুদণ্ডগলা মানুষের বুদবুদ, গলগল করে বেরুনো চিমনিফাঁটা মেয়েলোক ধুঁয়া, ধাতুক্যান্সার, স্নায়ু যান্ত্রিকীকরণ। কালো ভালোবাসা, কালো দীর্ঘজীবিতা। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভাবি কবে বসবো, বসে বসে ভাবি আর কবে দাঁড়াবো।

ছোট চিন্তা, সংক্ষিপ্ত ভাবাবেগ, নি:শব্দ প্রকাশ।

আমাকে আমৃত্যু এই ক্ষীণ বিস্তারটুকুতেই সাঁতরাতে হবে।

তোমাকে ছেড়ে চলে এলাম, এই জন্য।